সর্বশেষ আপডেট করা হয়েছে :2018-06-05 
Links
 
এ পর্যন্ত পড়েছেন
84456
জন পাঠক
 
সর্বমোট জীবনী 320 টি
ক্ষেত্রসমূহ
সাহিত্য ( 37 )
শিল্পকলা ( 18 )
সমাজবিজ্ঞান ( 8 )
দর্শন ( 2 )
শিক্ষা ( 17 )
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ( 8 )
সংগীত ( 10 )
পারফর্মিং আর্ট ( 12 )
প্রকৃতি ও পরিবেশ ( 2 )
গণমাধ্যম ( 8 )
মুক্তিসংগ্রাম ( 155 )
চিকিৎসা বিজ্ঞান ( 3 )
ইতিহাস গবেষণা ( 1 )
স্থাপত্য ( 1 )
সংগঠক ( 8 )
ক্রীড়া ( 6 )
মানবাধিকার ( 2 )
লোকসংস্কৃতি ( 1 )
নারী অধিকার আন্দোলন ( 2 )
আদিবাসী অধিকার আন্দোলন ( 1 )
যন্ত্র সংগীত ( 0 )
উচ্চাঙ্গ সংগীত ( 0 )
আইন ( 1 )
আলোকচিত্র ( 3 )
সাহিত্য গবেষণা ( 0 )
Untitled Document
এ মাসে জন্মদিন যাঁদের
নূরজাহান বেগম:
ফররুখ আহমেদ:
হাসান হাফিজুর রহমান:
সেলিনা হোসেন:
সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ :
কিউ এ আই এম নুরউদ্দিন:
মোনাজাতউদ্দিন:
সুফিয়া কামাল:
পূর্ণেন্দু দস্তিদার:
নির্মলেন্দু গুণ:
রাহিজা খানম ঝুনু :
মুকুল সেন :
গণেশ ঘোষ:
সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী:
সফিউদ্দিন আহমেদ:
মোহিউদ্দীন ফারুক :
কামাল লোহানী:
জহুর হোসেন চৌধুরী:
শহীদ খান:
নেত্রকোণার গুণীজন
ট্রাস্টি বোর্ড
উপদেষ্টা পরিষদ
গুণীজন ট্রাষ্ট-এর ইতিহাস
"গুণীজন"- এর পেছনে যাঁরা

If you cannot view the fonts properly please download and Install this file.
 

 

Online Exhibition
New Prof
রওশন জামিল( ২) রামকানাই দাশ হালিমা খাতুন
 
দার্শনিক সরদার ফজলুল করিমের জন্মদিন

সরদার ফজলুল করিমের জন্ম ১৯২৫ সালের মে মাসে প্রথম দিনে। বরিশাল জেলার উজিতপুর থানার আটিপাড়া গ্রামে।

সরদার ফজলুল করিম ১৯৪৬ সালে প্রভাষক হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস নিতে শুরু করেন। ১৯৪৮ সালে স্বেচ্ছামূলকভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকতায় ইস্তফা দেন তিনি। ১৯৬৩ সালে বাংলা একাডেমীর অনুবাদ শাখায় যোগ দেন। ১৯৭১ সালে তিনি বাংলা একাডেমীর সংস্কৃতি শাখার বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর ১৯৭২ সালে তিনি আবার বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগ দেন।

তাঁর জন্মদিনে ‘গুণীজন’ তাঁকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছে।

সরদার ফজলুল করিমের বর্ণাঢ্য জীবনী পড়তে ক্লিক করুন।

বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আব্দুর রউফের জন্মদিন

বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আব্দুর রউফ জন্মেছিলেন ১৯৪৩ সালের ১লা মে ফরিদপুর জেলার মধুখালি থানার সালামতপুর গ্রামে।

৮ এপ্রিল ১৯৭১-এ সহযোদ্ধাদের রক্ষা করার জন্য প্রকৃত বন্ধুর মতো একটি মাত্র মেশিনগান দিয়ে শত্রুদের ঘায়েল করলেন এবং একসময় মৃত্যুশেলে ঝাঁঝড়া হয়ে থেমে গেলেন তিনি। ল্যান্স নায়েক আব্দুর রউফ বাংলার শোণিতাক্ত সূর্যের সঙ্গে মিশে গেলেন। নিজের বুকের আলো দিয়ে উজ্জ্বল করলেন তিনি স্বাধীনতার পথ৷ হয়ে গেলেন অমর, বীর, শহীদ, বীরশ্রেষ্ঠ।

তাঁর জন্মদিনে গুণীজন কর্মসূচি তাঁকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছে।

মুন্সি আব্দুর রউফের বর্ণাঢ্য জীবনী পড়তে ক্লিক করুন।

কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেনের জন্মদিন

সেলিনা হোসেন একই সাথে কথাসাহিত্যিক, গবেষক এবং প্রাবন্ধিক। তাঁর লেখার জগত্ বাংলাদেশের মানুষ, তাদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য। জীবনের গভীর উপলব্ধির প্রকাশকে তিনি শুধু কথাসাহিত্যের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখেননি, শাণিত ও শক্তিশালী গদ্যের নির্মাণে প্রবন্ধের আকারেও উপস্থাপন করেছেন।

সেলিনা হোসেনের জন্ম ১৯৪৭ সালের ১৪ জুন রাজশাহী শহরে।

পশ্চিমবঙ্গের রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর 'যাপিত জীবন' এবং যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর 'নিরন্তর ঘন্টাধ্বনি' উপন্যাস পাঠ্যসূচিভুক্ত। শিলচরে আসাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫টি উপন্যাস এম.ফিল. গবেষণাভুক্ত। ২০০৫ সাল থেকে শিকাগোর ওকটন কলেজের সাহিত্য বিভাগ দক্ষিণ এশিয়ার সাহিত্য কোর্সে তাঁর 'হাঙ্গর নদী গ্রেনেড' উপন্যাসটি পাঠ্যসূচিভুক্ত হয়।

তাঁর জন্মদিনে 'গুণীজন'-এর পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা রইল।

সেলিনা হোসেনের বর্ণাঢ্য জীবনী পড়তে ক্লিক করুন।

কবি ফররুখ আহমদের জন্মদিন

যশোর জেলার মাগুরা থানার মাঝআইল গ্রামে ১৯১৮ সালের ১০ জুন ফররুখ আহমদ জন্মগ্রহণ করেন।

'বুলবুল'-এ প্রকাশিত 'রাত্রি' সনেটটিই তাঁর প্রথম মুদ্রিত কবিতা (শ্রাবণ ১৩৪৪)। এরপর প্রায় এক হাজারেরও বেশী সনেট তিনি রচনা করেছেন। অঝোরে কবিতা লিখেছেন তিনি এবং তা নিয়মিত প্রকাশিতও হয়েছে সেকালে কলকাতার প্রথম শ্রেণীর বহু পত্র-পত্রিকায় এবং অসংখ্য ছোট পত্রিকায় ও সংকলনে। ফররুখ লেখেন অনেক আধুনিক, দেশপ্রেমিক, ইসলামি ও উদ্দীপনামূলক গান, গজল, হামদ ও নাত। ফররুখ আহমদ পুরস্কারে ভূষিত হন : প্রেসিডেন্ট পুরস্কার, 'প্রাইড অব পারফরমেন্স', বাংলা একাডেমী পুরস্কার, আদমজী পুরস্কার, ইউনেস্কো পুরস্কার, একুশে পদক, স্বাধীনতা পুরস্কার ও ইসলামিক ফাউন্ডেশন পুরস্কার। ১৯৬৬ সালে পাকিস্তান সরকার ফররুখ আহমদকে 'সিতারা-ই-ইমতিয়াজ' খেতাবে ভূষিত করলে তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেছিলেন।

তাঁর জন্মদিনে 'গুণীজন' তাঁকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছে।

ফররুখ আহমদের বর্ণাঢ্য জীবনী পড়তে ক্লিক করুন।

সাংবাদিক ও সাহিত্যিক নূরজাহান বেগমের জন্মদিন

বাংলাদেশের সাংবাদিকতার জগতে নূরজাহান বেগম একটি বিশিষ্ট নাম। বাবা 'সওগাত' সম্পাদক মোহাম্মদ নাসিরউদ্দীনের হাত ধরে সংবাদপত্র জগতে তাঁর আবির্ভাব। উপমহাদেশের প্রথম নারী সাপ্তাহিক 'বেগম' পত্রিকার জন্মলগ্ন থেকে এর সম্পাদনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। তিনি শুধু একজন সাংবাদিকই নন লেখক গড়ার কারিগরও। তিনি ছয় দশক ধরে 'বেগম' পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করেছেন।

নূরজাহান বেগম ১৯২৫ সালের ৪ জুন চাঁদপুরের চালিতাতলি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

সাংবাদিকতার জগতে অনবদ্য অবদান রাখার জন্য নূরজাহান বেগম বহুবার সম্মানিত ও সংবর্ধিত হয়েছেন।

তাঁর জন্মদিনে 'গুণীজন' শ্রদ্ধা জানাচ্ছে।

   
Gunijan

© 2018 All rights of Photographs, Audio & video clips and softwares on this site are reserved by .